1. admin@ajkerbangla24.com : admin :
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০২:০৪ পূর্বাহ্ন

মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ

আজকের বাংলা ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২২
  • ৬৯ বার পঠিত

আজ সবার সব পথ এসে মিলবে এক অভিন্ন গন্তব্য- শহীদ মিনারে। হাতে হাতে ফুলের স্তবক, কণ্ঠে চির অম্লান সেই গান- ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারী/ আমি কি ভুলিতে পারি…’। ধীর পায়ে এগিয়ে যাবে আবালবৃদ্ধবনিতা। ভাষাশহীদদের প্রতি নিবেদিত শ্রদ্ধার ফুলে ঢেকে যাবে শহীদ মিনারের বেদি। আজ একুশে ফেব্রুয়ারি, মহান ভাষাশহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। চিরপ্রেরণার অমর একুশে।

বরাবরের মতোই এবারও গতকাল বিকাল থেকেই মাতৃভাষা দিবস উদযাপনের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। দোয়েল চত্বর, চানখাঁরপুল, টিএসসি, পলাশী মোড় থেকে শহীদ মিনারগামী পথগুলো যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এসব পথ ঐতিহ্যবাহী আলপনায় সেজে উঠেছে। গত রাত থেকে এই পথে মাতৃভাষাপ্রেমী সর্বস্তরের মানুষের সারি। আজ দিনেরও অনেকটা জুড়ে থাকবে শ্রদ্ধা নিবেদনের মিছিল। তবে করোনা মহামারির কারণে ব্যক্তিপর্যায়ে একসঙ্গে দুজন আর সংগঠন পর্যায়ে সর্বোচ্চ পাঁচজনের বেশি শহীদ মিনারে যাওয়া যাবে না।

বাংলা মায়ের বীর সন্তানেরা মাতৃভাষার সম্মান রক্ষার্থে আজ থেকে ৭০ বছর আগে ১৯৫২ সালের এই দিনে বুকের রক্তে রঞ্জিত করেছিলেন ঢাকার রাজপথ। পৃথিবীর ইতিহাসে সৃষ্টি হয়েছিল মাতৃভাষার জন্য আত্মদানের অভূতপূর্ব নজির। ভাষার জন্য রক্ত দিয়ে, অকাতরে জীবন বিলিয়ে দেওয়ার ইতিহাস সৃষ্টিকারী জাতি বাঙালি। একুশে ফেব্রুয়ারি তাই বাঙালির চেতনার প্রতীক। সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, সফিউর এবং নাম না জানা শহীদের রক্তে রাঙানো অমর একুশে বাঙালির পথের দিশা, প্রাণের স্পন্দন।

মাতৃভাষার জন্য বাঙালির আত্মদানের এই অনন্য ঘটনা স্বীকৃত হয়েছে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে। ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেসকো একুশে ফেব্রুয়ারিকে ঘোষণা করে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে। আজ বাঙালির সঙ্গে সারা বিশ্বেই দিনটি পালিত হচ্ছে।

দিবসটি উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বাংলাসহ বিশ্বের বিভিন্ন ভাষাভাষী জনগণ ও জাতিগোষ্ঠীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। আর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেন, সারা বিশ্বের সব নাগরিকের সত্য ও ন্যায়ের অধিকার প্রতিষ্ঠার প্রেরণার উৎস আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস।

আজ সরকারি ছুটির দিন। ভাষাশহীদদের স্মরণে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হচ্ছে। একই সঙ্গে সর্বত্র ওড়ানো হচ্ছে শোকের কালো পতাকা। সংবাদপত্র, টেলিভিশন ও বেতারে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ ও অনুষ্ঠানমালা প্রচার করা হচ্ছে।

দেশের সর্বত্রই আজ প্রভাতফেরি করে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হচ্ছে শহীদদের স্মৃতির প্রতি। সব সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকেব।

শ্রদ্ধা জানাতে মানতে হবে নিয়ম

শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানানোর সময় স্বাস্থ্যবিধিসহ মানতে হবে বেশ কিছু নিয়ম। প্রতিটি সংগঠনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ পাঁচজন প্রতিনিধি এবং ব্যক্তিপর্যায়ে একসঙ্গে সর্বোচ্চ দুজন শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করতে পারবেন। শহীদ মিনারের সব প্রবেশমুখে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন ও লিকুইড সাবান রাখা হবে। পাশাপাশি শ্রদ্ধা নিবেদনে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে। মাস্ক ছাড়া কাউকে শহীদ মিনার চত্বরে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

শহীদ মিনার চত্বরে শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক স্কাউট, গার্লস গাইড, স্বেচ্ছাসেবক সদস্য নিয়োজিত করা হয়েছে। তাদের কাছে হ্যান্ড-স্যানিটাইজার ও মাস্ক থাকবে, যাতে আগত জনসাধারণ হাত জীবাণুমুক্ত করে শহীদ মিনারে প্রবেশ করতে পারেন। কেউ মাস্ক না নিয়ে এলে, তাদের মাস্কও সরবরাহ করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ আজকের বাংলা ২৪
Themes customized By Theme Park BD